• Hillbd newsletter page
  • Hillbd rss page
  • Hillbd twitter page
  • Hillbd facebook page
সর্বশেষ
বাল্য বিবাহের বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে                    বজ্রপাত থেকে রক্ষায় রাঙামাটিতে একযোগে দুই লক্ষ তাল বীজ রোপণ                    ১৪ বছর পর কাপ্তাই প্রেস ক্লাবের বৈঠক!                    রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে কেউই বিভ্রান্তি ছড়াতে না পারে সে ব্যাপারে সকলকে সজাগ থাকতে হবে-বৃষকেতু চাকমা                    বিলাইছড়িতে দশ হাজার তাল বীজ রোপণ                    কর্ণফুলী ডিগ্রী কলেজ শাখা ছাত্রলীগের নতুন কমিটি গঠন                    কাপ্তাইয়ে পাহাড় ও ভুমি ধসে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের মাঝে আর্থিক সহায়তা প্রদান                    কাপ্তাইয়ে ৪২ টি স্পটে একযোগে ১০ হাজার তাল বীজ রোপণ                    কর্ণফুলী ডিগ্রী কলেজের ছাত্রলীগের বার্ষিক সম্মেলন                    রাঙামাটিতে মালবাহী ট্রাক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে দোকাঘরে ঢুকে ২ জন নিহতঃ আহত ৭                    বিশ্ব পর্যটন দিবস উদ্যাপন উপলক্ষে রাঙামাটিতে প্রস্তুতিমূলক সভা                    হিজরি নববর্ষকে রাষ্ট্রীয়ভাবে পালনের দাবি                    বজ্রপাত থেকে রক্ষা পেতে কাপ্তাইয়ে রোপন করা হবে১০ হাজার তাল বীজ                    কাপ্তাইয়ে সাংস্কৃতিক একাডেমীর সংগীত পরীক্ষায় উর্ত্তীন ছাত্র-ছাত্রীদের সনদপত্র বিতরন                    লংগদুতে অগ্নিকান্ডের ঘটনায় সাড়ে তিন মাসেও ক্ষতিগ্রস্তরা বসত ভিটায় ফিরতে পারেনি                    খাগড়াছড়িতে দরিদ্র শিশু ও নারীদের মাঝে রামকৃষ্ণ মিশনের বস্ত্র বিতরণ                    রাঙামাটিতে বজ্রপাতের আঘাত প্রতিরোধে দুই লক্ষ তাল বীজ রোপন করা হবে                    খাগড়াছড়িতে শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে আওয়ামীলীগে অসন্তোষ                    রাঙামাটিতে এটুআই প্রোগ্রামের দক্ষতা উন্নয়ন কর্মশালা                    খাগড়াছড়িতে শিক্ষক নিয়োগ বাতিলের দাবিতে শিক্ষামন্ত্রী বরাবর সম্মিলিত ছাত্রসমাজের স্মারকলিপি                    রাঙামাটিতে শারদীয় দূর্গা উৎসব সুষ্ঠভাবে সম্পন্ন করতে পৌরসভার আর্থিক সহায়তা                    
 

লংগদুর অগ্নিসংযোগের ঘটনায় গঠিত মন্ত্রী পরিষদেও তদন্ত কমিটির কাছে বিশিষ্টজনরা
পার্বত্য চট্টগ্রামে বিচার হীনতা সংস্কৃতি থাকায় একের পর এক সাম্প্রদায়িক হামলা হচ্ছে

বিশেষ প্রতিনিধি : হিলবিডি টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published: 07 Jul 2017   Friday

লংগদুতে পাহাড়ীদের বাড়ীঘরে অগ্নিসংযোগের ঘটনায় মন্ত্রী পরিষদের গঠিত তদন্ত কমিটির  সাথে পার্বত্য চট্টগ্রামের বিশিষ্টজনদের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

 

তদন্ত কমিটির কাছে পার্বত্য চট্টগ্রামের বিশিষ্টজনরা বলেছেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে বিচার হীনতা সংস্কৃতি থাকায় একের পর এক সাম্প্রদায়িক হামলা হচ্ছে। এ হামলায় প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িতদের বিচারের আওতায় আনা হয় না। ফলে এরা অপরাধ কর্মকান্ড সংগঠিত করার সাহস পায়। উৎসাহিত হয়ে তারা পুনরায়  হামলা, ভাংচুর, লুঠপাত ও অগ্নিসংযোগ চালায়। এসব অপরাধ কর্মকান্ড বন্ধ করতে হলে অপরাধীদের অবশ্যই আইনের আওতায় এনে শাস্তি দিতে হবে।

 

প্রসঙ্গত: গেল ২ জুন লংগদুতে তিনটি পাহাড়ী গ্রামে অগ্নিসংযোগের ঘটনায় মন্ত্রী পরিষদের গঠিত তদন্ত কমিটি গেল বৃহস্পতিবার রাঙামাটিতে সফরে আসেন। 

 

বৈঠকে  তদন্ত কমিটির মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, চট্টগ্রামের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (সার্বিক) শংকর রঞ্জন সাহা, চট্টগ্রাম অঞ্চলের স্থানীয় সরকার বিভাগের পরিচালক দীপক চক্রবর্তী, পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের যুগ্ন সচিব মঞ্জুরুল আলম, এবং রাঙামাটি অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আবু সাহেদ চৌধূরী। কমিটির অন্য সদস্য চট্টগ্রামের ডিআইজির প্রতিনিধি এম এ মাসুদ খান উপস্থিত ছিলেন না। পার্বত্য চট্টগ্রামের বিশিষ্টজনদেও মধ্যে উপস্থিত ছিলেন পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক কমিটির সভাপতি গৌতম দেওয়ান,  অধ্যাপক মংসানু চৌধুরী, সাবেক জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সদস্য নিরূপা দেওয়ান, বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরামের পার্বত্য অঞ্চল সভাপতি প্রকৃতি রঞ্জন চাকমা।

 

বৈঠক সূত্রে জানা যায়, বিশিষ্টজনেরা তদন্ত কমিটিকে বলেছেন,পার্বত্যাঞ্চলের ‘জাতিগত, সাংস্কৃতিক ও ভৌগোলিক বৈশিষ্ট্য নির্ভর ভিন্ন জীবন ব্যবস্থা’কে আমলে না নিয়ে ৮০ দশকে সমতল অঞ্চল থেকে পার্বত্যাঞ্চলে জন-স্থানান্তর প্রক্রিয়া শুরু করে সরকার। এ নীতির কারণে  ১৯৮০ সাল থেকে শুরু করে আজ পর্যন্ত আদিবাসীদের উপর কম করে হলেও ১৮টির মতো সাম্প্রদায়িক হামলা হয়েছে।  এতে হাজারের অধিক নিরীহ মানুষ মারা পড়ে। অথচ  এসব ঘটনার একটিরও বিচার হয়নি। অপরাধীরা বার বার পার পেয়ে গেছে।

 

১৯৮৯ সালেও লংগদুতে সাম্প্রদায়িক হামলা হয়। ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দেওয়া হয়। অনেককে হত্যা করা হয়। এ ঘটনার বিচার হয়নি। ফলে এরা আরও অপরাধ করতে উৎসাহি হয়েছে।

 

লংগদুর সাম্প্রতিক ঘটনায় বর্ণনা করে  পার্বত্য চট্টগ্রামের বিশিষ্টজনরা বলেন, লংগদুতে একের পর এক গ্রামে অগ্নিসংযোগের সময় আইন শৃঙ্খলা বাহিনী উপস্থিত ছিল। এর দায় সেখানকার আইন শৃঙ্খলা বাহিনী এড়াতে পারে না। তাদের ভুমিকা নিরপেক্ষ ছিল না।

 

বেঠকে বিশিষ্জনরা দীর্ঘমেয়াদে করণীয়  হিসেবে পার্বত্য চুক্তির পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়নের রূপরেখা ঘোষণা করে তা বাস্তবায়ন এবং জন-স্থানান্তর নীতির অধীনে আনীত সকল বসতি স্থাপনকারীদেরকে পার্বত্য চট্টগ্রামের বাইরে সম্মানজনক পুনর্বাসন প্রদান করার পরামর্শ দেন।

 

সূত্র আরো জানায় বৈঠকে তদন্ত কমিটির কাছে একটি লিখিত বক্তব্য দেওয়া হয়। এতে লংগদু ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত করা।  ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারবর্গের ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ নির্ধারণ করে সেই ভিত্তিতে পুনর্বাসন কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা। পার্বত্য জেলা পরিষদ আইনের ৬২ ধারা অনুসারে অবিলম্বে পার্বত্য জেলা পরিষদের অধীনে স্থানীয় পুলিশ-এর কার্যক্রম শুরু করাসহ ৭ টি দাবী তুলে ধরা হয়।

 

উল্লেখ্য গেল ১ জুন দিঘীনালা-খাগড়াছড়ি সড়কের খাগড়াছড়ি সদর থানার চার মাইল এলাকায় স্থানীয় যুবলীগ নেতা নুরুল ইসলাম নয়নের লাশ উদ্ধার করা হয়।  তিনি মোটর সাইকেলে ভাড়ায় যাত্রী নিয়ে লংগদু থেকে  খাগড়াছড়িতে গিয়েছিলেন। গেল ২জুন লংগদুর বাট্ট্যাপাড়া থেকে  লংগদু সদর পর্যন্ত নয়নের লাশ নিয়ে স্থানীয় বাঙালীরা মিছিলের সময় তিনটিলা,মানিকজোড় ছড়া ও বাট্টাপাড়ায় পাহাড়ীদের ঘর বাড়ীতে অগ্নিসংযোগ করে। এতে কমপক্ষে সরকারী হিসাব অনুযায়ী ২১২টি পাহাড়ী ঘরবাড়ি পুড়ে যায়। এসময় আগুনে পুড়ে মারা  যান গুনমালা চাকমা নামে এক বৃদ্ধা।

--হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

এই বিভাগের সর্বশেষ
আর্কাইভ