• Hillbd newsletter page
  • Hillbd rss page
  • Hillbd twitter page
  • Hillbd facebook page
সর্বশেষ
খাগড়াছড়িতে শিশুতোষ দ্বি-ভাষিক বই বিষয়ক স্থানীয় পর্যায়ে অধিপরামর্শ সভা                    রাঙামাটিতে ব্লাষ্টের উদ্যোগে এনজিও প্রতিনিধিদের সাথে নেটওয়ার্কিং সভা                    রাঙামাটি আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী ঊষাতন তালুকদার কাপ্তাই থেকে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু                    লংগদুতে আওয়ামীলীগ প্রার্থী দীপংকর তালুকদারের প্রচারনা                    বাঘাইছড়িতে বিএনপি প্রার্থী মনিস্বপন দেওয়ানের গনসংযোগ ও জনসভা                    কাপ্তাইয়ে দীপংকর তালুকদারের সমর্থনে প্রচার কার্যক্রম শুরু                    উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে নৌকার কোন বিকল্প নেই-কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা                    ব্লাস্ট রাঙামাটি ইউনিটের উপকারভোগীদের সাথে এক পুনঃপর্যালোচনা সভার আয়োজন                    রাঙামাটিতে জেলা পর্যায়ে বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল                    পাহাড়ে চাকুরী হবে মেধার মূল্যায়নের মাধ্যমে-মনিস্বপন দেওয়ান                    পাহাড়ে সাম্প্রদায়িক-সম্প্রীতি বজায় ও অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে নৌকা প্রতীকে ভোট দেয়ার আহবান দীপংকর তালুকদারের                    বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির প্রার্থী জুঁই চাকমার ১৮ দফা নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষনা                    জনবিছিন্ন প্রার্থীদের ভোটারদের প্রতি বর্জন করারআহ্বান দীপংকর তালুকদারের                    খাগড়াছড়িতে যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রনে এডভোকেসী সভা                    খাগড়াছড়িতে প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্দ                    খাগড়াছড়িতে মূলধারার তাবলীগের সংবাদ সম্মেলন,তিন দফা দাবী                    এএফ মুজিবুর রহমান ফাউন্ডেশনের ৯১ লক্ষ টাকায় মোনঘর শিশু সদনে ছাত্রী নিবাসের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন                    মহালছড়ির মিলনপুর বন বিহারে ধর্মীয় ও শিক্ষা সহায়ক বই বিতরণ সেনাবাহিনীর                    বাঘাইছড়ি থেকে দীপংকর তালুকদারের নৌকা প্রতীকের আনুষ্ঠানিকভাবে প্রচারণা শুরু                    নির্বাচনে জয়ী হয়ে ক্ষমতায় আসলে পাহাড়ে চলমান রক্তক্ষয়ী সংঘাত বন্ধে জোরালো পদক্ষেপ নেবে                    রাঙামাটি আসনে প্রতিদ্বন্ধি ৬ প্রার্থীকে প্রতীক বরাদ্দ,সিংহ প্রতীক পেলেন উষাতন তালুকদার                    
 

রাঙামাটিতে পাহাড় ধসে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে পুর্নবাসনের লক্ষে ত্রাণ বিতরণ

স্টাফ রিপোর্টার : হিলবিডি টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published: 05 Sep 2017   Tuesday

রাঙামাটিতে পাহাড় ধসে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে পুর্নবাসনের লক্ষে মঙ্গলবার ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে নগদ টাকাসহ ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করেছে জেলা প্রশাসন। তবে প্রশাসনের পক্ষ থেকে আগামী ৭ সেপ্টেম্বরের মধ্যে আশ্রিতদের আশ্রয় কেন্দ্র ছাড়তে বলা হয়েছে।


রাঙামাটিতে পাহাড় ধসে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে পুর্নবাসনের লক্ষে জেলা প্রশাসন কার্যালয় চত্বরে অনুষ্ঠিত ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের মাঝে ত্রাণ সামগ্রি বিতরণ করেন সাবেক পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী দীপংকর তালুকদার। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মানজারুল মান্নান। এসময় অন্যান্যর মধ্যে উপস্থিত ছিলেন পুলিশ সুপার সাঈদ মো. তারিকুল হাসান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আবু শাহেদ চৌধুরী, রাঙামাটি পৌরসভা মেয়র আকবর হোসেন চৌধুরী, জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক কাজী মো. জসিম উদ্দিন বাবুল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
অনুষ্ঠানে রাঙামাটি পৌর সভার ৬ নম্বর ওয়ার্ডের সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত ১৪০ পরিবার এবং ৬টি আশ্রয় কেন্দ্রে থাকা ২৬৩ পরিবারকে পরিবারকে ৬ হাজার টাকা,দুই বান্ডেল ঢেউ টিন ও ৩০ কেজি চাল বিতরণ করা হয়। এছাড়া আংশিক ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারকে এক হাজার ও ২০ কেজি চাউল বিতরণ করা হয় জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে।


বিতরনকালে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মানজারুল মান্নান বলেন, আশ্রয় কেন্দ্র পরিচালানা করা দুরুহ হয়ে দাঁড়িয়েছে। ইতোমধ্যে সরকারি বরাদ্দ শেষ হয়েছে। এ অবস্থায় কোনো মতেই আশ্রয় কেন্দ্র চালানো সম্ভব নয়। তাই জমা রাখা ত্রাণ থেকে এসব সহায়তা দিয়ে আশ্রয় কেন্দ্র ছাড়তে বলা হয়েছে। ত্রাণ পাওয়ার পর আশ্রিতরা ঘরমুখী হবেন। ঝুঁকিপূর্ণ বা বিধ্বস্ত ভিটায় ঘর তৈরী না করে নিরাপদ স্থানে ঘরবাড়ি তৈরীর জন্য তিনি অনুরোধ জানান।


এদিকে ত্রাণ বিতরণ শেষে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে জেলা প্রশাসক বলেন, গেল ১৩ জুন পাহাড় ধসের ঘটনায় শহরসহ জেলায় সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার ১২৩১ এবং আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার ৯ হাজার ৫৩৭। জেলায় এসব ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে এ পর্যন্ত ৭৭৬ টন চাল, নদদ ১ কোটি ৬৫ লাখ ৮৬ হাজার, ৫০০ বান্ডেল ঢেউ টিন এবং গৃহ নির্মাণ ব্যয় মঞ্জুরি বাবদ ১৫ লাখ টাকাসহ বিভিন্ন ত্রাণ সামগ্রি বিতরণ করা হয়েছে।

 

অপরদিকে, ক্ষতিগ্রস্থরা জানান, সামান্য এ ত্রাণ নিয়ে কোথায় যাবেন, কী করবেন তা কিছুই বুঝতে পারছেন না তারা। তারা বাড়িভিটা বিধ্বস্ত হয়ে এখন সর্বহারা। এখন সামান্য এই ত্রাণ দিয়ে আগামী ৭ সেপ্টেম্বরের মধ্যেই আশ্রয় কেন্দ্র ছাড়তে বলে দেয়া হচ্ছে। সরকার পুনর্বাসনের আশ্বাস দেয়ায় এত দিন তার অপেক্ষায় আশ্রয় কেন্দ্রে ছিলেন। কিন্তু এখনো তাদের পুনর্বাসনের বিষয়ে সুস্পষ্ট কিছুই বলা হচ্ছে না। প্রশাসন থেকে এখনও সেই একইভাবে উপযুক্ত জায়গা খোঁজা এবং সরকার বরাদ্দ দিলে পরবর্তীতে পুনর্বাসন করার কথা বলা হচ্ছে।


উল্লেখ্য, গেল ১৩ জুন রাঙামাটিতে পাহাড় ধসের ঘটনায় ৫ সেনা সদস্যসহ ১২০ জনের মৃত্যু হয় জেলা প্রশাসনের হিসাব মতে প্রায় ১৮ হাজার ৫শ ঘর বাড়ী ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এর মধ্যে সম্পুর্ন বিধস্ত হয় ১২শ ঘরবাড়ি।
--হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

আর্কাইভ