• Hillbd newsletter page
  • Hillbd rss page
  • Hillbd twitter page
  • Hillbd facebook page
সর্বশেষ
শান্তিপূর্ন পরিবেশ বাজয় রাখতে সকলকে সন্ত্রাস, চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে রুখে দাড়াতে হবে                    বরকলে সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেফতার                    বান্দরবান বিকেবি’র ঋণ বিতরণ                    রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের মাসিক সভা                    রাঙামাটিতে হিল ফ্লাওয়ারের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সভা                    মহালছড়ি টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ পরিদর্শনে উন্নয়ন বোর্ড চেয়ারম্যান                    কাপ্তাই ব্যাঙছড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শ্রেণীকক্ষ সম্প্রসারণ কাজের উদ্বোধন                    খাগড়াছড়িতে সোনালীকা ডে উপলক্ষে বার্ষিক সার্ভিস ও মত বিনিময় সভা                    পাহাড়ি-বাঙালির সম্মিলিত উন্নয়নেই পার্বত্যাঞ্চলে সমৃদ্ধি আসবে-উন্নয়ন বোর্ড চেয়ারম্যান                    পানছড়িতে আওয়ামীলীগ সভাপতির ভাগিনাসহ দুজনকে ৮শ পিস ইয়াবাসহ আটক                    রাঙামাটির উপজেলা প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তাদের বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত                    খাগড়াছড়ি জেলা ফুটবল লীগ ফাইনালে চ্যাম্পিয়ন সার্প-খাগড়াছড়ি                    কাপ্তাই ইউএনও’র উদ্যোগে বদলে গেলো একটি ঘাটের পরিবেশ                    পানছড়ি বাজারের আগুনে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দাঁড়ালেন কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি                    আলীকদমে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত                    কাপ্তাইয়ে নির্পোটে ৫ দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ কর্মশালা শুরু                    পানছড়ি বাজারে ভয়াবহ আগুনে ২৫টি বসত ও দোকান পুড়ে ছাই                    দৈনিক প্রথম আলোর রাঙামাটি প্রতিনিধি সাধন বিকাশ চাকমা সড়ক দুর্ঘটনায় আহত                    এমএন লারমার জীবন দর্শন ও রাজনৈতিক জীবন সংগ্রামকে তরুন প্রজন্মকে নতুন করে ভাবতে হবে-সন্তু লারমা                    এমএন লারমা ছিলেন দেশের সমগ্র খেতে খাওয়া,মেহনতি,শ্রমজীবী মানুষের নেতা                    খাগড়াছড়িতে মারমা উন্নয়ন সংসদের ২দিনের কেন্দ্রীয় সম্মেলনের উদ্বোধন                    
 

৬ মাসেও জুরাছড়ির লুলাংছড়ি-বালুখালী সংযোগ কালভার্টের সংস্কার হয়নি

সুমন্ত চাকমা, জুরাছড়ি(রাঙামাটি) : হিলবিডি টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published: 26 Nov 2017   Sunday

৬ মাসেও রাঙামাটির জুরাছড়ি উপজেলা সদরের লুলাংছড়ি- বালুখালী সংযোগ সড়কের কালভার্টটি সংস্কারের উদ্যোগ নেয়া হয়নি। বর্তমানে বাঁশের সাকো দিয়ে তৈরী কালভার্ট দিয়ে প্রতিদিন হাজার হাজার শিক্ষার্থীসহ লোকজনদের পারাপার করতে হচ্ছে। এতে এলাকাবাসীর সীমাহীন দুর্ভোগের অন্ত নেই। গেল ১৩ জুন পাহাড় ধসে ও পাহাড়ী ঢলে কালভার্টটি ভেঙ্গে যায়। 

 

স্থানীয়রা জানায়, উপজেলার সদরের জুরাছড়ি থানা সংলগ্ন লুলাংছড়ি-বালুখালী সংযোগ সড়কে উপর পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের অর্থায়নে নির্মাণ করা হয় প্রায় দুইশ ফুট দৈর্ঘ্যর কালভার্টটি। এই কালভার্ট দিয়ে প্রতিদিন উপজেলা সদরের সাথে বালুখালী, লুলাংছড়ি,ডেবাছড়া এবং দুদুম্যা ও মইদ্যাং ইউনিয়নের স্কুল পড়–য়া শিক্ষার্থী থেকে প্রায় দশ হাজার মানুষ পারাপার হয়ে থাকে। কিন্তু গত ৬ জুন ভয়াবহ পাহাড় ধসে ও পাহাড়ী ঢলের কারণে দুই ইউনিয়নসহ তিনটি গ্রামের পারাপারের একমাত্র কালভার্টটি ভেঙ্গে যায়। এলাকার লোকজন বাধ্য হয়ে পারাপারের জন্য বাঁশের তৈরী সাকো নির্মাণ করে। এছাড়া পাহাড় ধসের ঘটনায় জুরাছড়ি ইউনিয়নের লুলাংছড়ি ও সাপছড়ি, রাঙাচান হেডম্যান পাড়া সংলগ্ন কালভার্টটিও ভেঙ্গে গেছে। এর পর থেকে প্রশাসনের পক্ষ থেকে ভেঙ্গে যাওয়া কালভার্টটি সংস্কারের কোন উদ্যোগ নেয়নি।


এলাকাবাসীরা আরো জানায়,এ কালভার্ট দিয়ে দিয়ে জুরাছড়ি, মৈদং ও দুমদুম্যা ইউনিয়নের দশ হাজারের অধিক মানুষ উপজেলা সদরে যাতায়ত ও নানা কাজে কালভার্টের উপর দিয়ে পারাপার হতে হয়। অন্যদিকে লুলাংছড়ি ও সাপছড়ি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দুই শতাধিক এবং ভুবন জয় সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় ও পানছড়ি ভুবন জয় সরকারী মডেল বিদ্যালয়ে শত শত শিক্ষার্থী পারাপার করতে হয়।


ভুবন জয় সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ে সপ্তম শ্রেণীর শিক্ষার্থী রিপা চাকমা, জয় কর্মকার জানায়,প্রতিদিন বাঁশের সাকো দিয়ে ভয়ে ভয়ে পারাপার হতে হচ্ছে। কিছু দিন আগে দুই শিক্ষার্থী পারাপারের সময় নিচে পড়ে গিয়েছিল।


বালুখালী বাসিন্দা যুবক বিকাশ চাকমা জানান, বিগত পাহাড় ও প্রবল পাহাড়ী ঢলে নির্মানাধীন কালভার্টটি মুচড়ে ভেঙ্গে যাওয়ার পর যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। পরে যাতায়তের সুবিধার্থে এলাকায় সেচ্চা শ্রমে এই বাঁশে সাকোটি নির্মান করেছে। স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার বীর চাকমা জানান, বালুখালীর যুবকরা যদিও সেচ্চায় সাকোটি নির্মাণ করেছে, কিন্ত বর্তমানে সাকোটি ঝুকিপূর্ন হয়ে উঠেছে।


পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের এষ্টেট ইন্সপেক্টর মোঃ খোরশেদ আলম দাবী করছে চলতি অর্থ বছরে ক্ষতিগ্রস্থ্য কালভাটটি ভেঙ্গে সম্পূর্ন কালভার্টটি নির্মাণ করা হবে।


জুরাছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ রাশেদ ইকবাল চৌধুরী বলেন, কালভার্টটি সংস্কার অথবা আরেকটি নতুন সেতু নির্মাণের জন্য জেলা প্রশাসকসহ উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে চিঠি পাঠানো হয়েছে।


উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান রিটন চাকমা বলেন, কালভাটটি জরুরী ভিত্তিতে সংস্কারের জন্য উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়, জেলা প্রশাসকসহ উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে চিঠি দিলেও সংস্কারের বরাদ্দ পাওয়া যায়নি। কালভার্ট নির্মানের উপজেলা পরিষদের এত বড় অর্থ বরাদ্দ নেই।
--হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

আর্কাইভ