• Hillbd newsletter page
  • Hillbd rss page
  • Hillbd twitter page
  • Hillbd facebook page
সর্বশেষ
মগবানে হিল ফ্লাওয়ারের কৃষি বিষয়ক প্রশিক্ষণ                    বরকলে ১৫ জন কৃষকদের মাঝে ৩ লক্ষ ৫০ হাজার টাকার কৃষি ঋণ বিতরণ                    পানছড়ি বাজারে অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে নগদ অর্থ ও খাদ্যশস্য বিতরণ                    বঙ্গবন্ধু জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবলে রাঙামাটিতে চ্যাম্পিয়ন লংগদু উপজেলা                    রাঙামাটিতে মাতৃত্বকালীন ভাতা বিতরণ ও হেলথ ক্যাম্প                    পার্বত্যাঞ্চলে টেকসই সামাজিক সেবা প্রদানে উন্নয়ন বোর্ড ও জেলা পরিষদের সমঝোতা স্মারক সই                    মহালছড়িতে শিশু ও নারী উন্নয়নে জনসচেতনতামূলক বিভিন্ন কর্মসূচী                    কাপ্তাইয়ে নতুন ইউএনও হিসেবে অাশ্রাফ অাহমেদ রাসেলের দায়িত্ব গ্রহণ                    শান্তিপূর্ন পরিবেশ বাজয় রাখতে সকলকে সন্ত্রাস, চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে রুখে দাড়াতে হবে                    বরকলে সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেফতার                    বান্দরবান বিকেবি’র ঋণ বিতরণ                    রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের মাসিক সভা                    রাঙামাটিতে হিল ফ্লাওয়ারের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সভা                    মহালছড়ি টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ পরিদর্শনে উন্নয়ন বোর্ড চেয়ারম্যান                    কাপ্তাই ব্যাঙছড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শ্রেণীকক্ষ সম্প্রসারণ কাজের উদ্বোধন                    খাগড়াছড়িতে সোনালীকা ডে উপলক্ষে বার্ষিক সার্ভিস ও মত বিনিময় সভা                    পাহাড়ি-বাঙালির সম্মিলিত উন্নয়নেই পার্বত্যাঞ্চলে সমৃদ্ধি আসবে-উন্নয়ন বোর্ড চেয়ারম্যান                    পানছড়িতে আওয়ামীলীগ সভাপতির ভাগিনাসহ দুজনকে ৮শ পিস ইয়াবাসহ আটক                    রাঙামাটির উপজেলা প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তাদের বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত                    খাগড়াছড়ি জেলা ফুটবল লীগ ফাইনালে চ্যাম্পিয়ন সার্প-খাগড়াছড়ি                    কাপ্তাই ইউএনও’র উদ্যোগে বদলে গেলো একটি ঘাটের পরিবেশ                    
 

ঢাকায় এমএন লারমার ৭৯তম জন্ম দিবসে আলোচনা সভায় বক্তারা
এমএন লারমা ছিলেন দেশের সমগ্র খেতে খাওয়া,মেহনতি,শ্রমজীবী মানুষের নেতা

ডেস্ক রিপোর্ট : হিলবিডি টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published: 15 Sep 2018   Saturday

মানবেন্দ্র নারায়ণ লারমার(এমএন লারমা)  ৭৯তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে শনিবার ঢাকায়  এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

 

বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরামের মূখপাত্র অমর শান্তি চাকমার স্বাক্ষরিত এক প্রেস বার্তায় বলা হয়,বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরামের উদ্যোগে  বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্রে বাংলাদেশ  আদিবাসী ফোরামের সাধারণ সম্পাদক সঞ্জীব দ্রংয়ের সভাপতিত্বে আলোচক ছিলেন পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতিরি সহ-সভাপতি ঊষাতন তালুকদার এমপি, ঐক্যন্যাপের সভাপতি পঙ্কজ ভট্টাচার্য, বিশিষ্ট কলামিষ্ট ও গবেষক সৈয়দ আবুল মকসুদ, ঢাকা বিশ্বব্যিালয়ের শিক্ষক ড. খায়রুল চৌধুরী, কবি ও সাংবাদিক সোহরাব হাসান এবং এএলআরডি’র নির্বাহী পরিচালক শামসুল হুদা। আলোচনা সভায় বুদ্ধিজীবী, কবি সাহিত্যিক ও বিভিন্ন প্রগতিশীল ছাত্র সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন  বাংলাদেশ  আদিবাসী ফোরামের কেন্দ্রীয় সদস্য মেইনথিন প্রমীলা।

 

আলোচনা  সভায় তরুণ প্রজন্মের ভাবনায় এম এন লারমা শীর্ষক প্রারম্ভিক আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সতেজ চাকমা এবং এম এন লারমা স্মরণে গান পরিবেশন করেন এএলআরডির জান্নাত-ই ফেরদৌসী। 

 

আলোচনা সভায় ঊষাতন তালুকদার এমপি বিপ্লবী এম এন লারমার স্মৃতিতে শ্রদ্ধা জানিয়ে  বলেন, মানবেন্দ্র নারায়ণ লারমা একাধারে শিক্ষাবিধ, সমাজ সংস্কারক ও রাজনীতিবীদ। শিক্ষকতার পেশা গ্রহণের মধ্যে দিয়ে তিনি যেমন একদিকে শিক্ষা বিস্তার করার কাজে মনোনিবেশ করেছিলেন তেমনি সমাজ সংস্কারক হিসেবে ঘূণে ধরা সামন্তীয় সমাজব্যবস্থা, পশ্চাৎপদ সমাজব্যবস্থাকে বদলানোর জন্য নিরলস সংগ্রাম করে গিয়েছিলেন। তিনি শুধু পাহাড়ের মানুষের কথা বলেননি, তিনি দেশের সমস্থ কৃষক, শ্রমিক, মাঝি-মাল্লার অধিকারের কথাগুলো নির্ভয়ে সংসদে উত্থাপন করেছিলেন। তিনি ছিলেন প্রকৃতি প্রেমী। জঙ্গলে অবস্থানকালে তিনি তার সতীর্থদের প্রাকৃতিক জীবজন্তু না মারার জন্য বারণ করতেন।

তিনি আরো বলেন, এম এন লারমার যে চাওয়া সে চাওয়া আজও পূরণ হয়নি। পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির মধ্যে দিয়ে এম এন লারমার স্বপ্নকে বাস্তবায়নের যে চেষ্টা সেটাও চুক্তির মৌলিক বিষয়গুলো অবাস্তবায়িত থাকার ফলে ভেস্তে যাচ্ছে। প্রতিনিয়ত পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে আদিবাসীদের দেশান্তরী হতে বাধ্য করা হচ্ছে। অন্যদিকে জনগণের প্রতিনিধিরা ব্যক্তিস্বার্থের চক্রে বন্দী রয়েছেন। যার কারণে এম এন লারমার বলে যাওয়া সেই গরীব, মেহনতী, মাঝি-মাল্লারা এখনো অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এম এন লারমা বলতেন মানুষ হিসেবে বেঁচে থাকতে হলে গর্বের সহিত বেঁচে থাকতে হবে। উচ্চমার্গীয় চিন্তা আর সাধারণ জীবনযাপন ছিল তার জীবনাদর্শ বলেও ঊষাতন তালুকদার উল্লেখ করেন। 

ঐক্যন্যাপের সভাপতি পঙ্কজ ভট্টাচার্য্য বলেন, মানবেন্দ্র নারায়ণ লারমা দেশের গণতন্ত্রকে একটি অর্থপূর্ণ গণতন্ত্র দিতে চেয়েছিলেন, মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত চেতনায় সমাজ বিনির্মাণ করে একটি মানবিক রাষ্ট্র গঠন করতে চেয়েছিলেন। তিনি ছিলেন দূরদর্শী একজন বিপ্লবী নেতা। তিনি বুঝতে পেরেছিলেন  উগ্র বাঙ্গালী জাত্যভিমানী আগ্রাসনের কবলে জুম্ম জনগোষ্ঠী তার অধিকার থেকে বঞ্চিত হবে। তিনি চেয়েছিলেন শাসনতন্ত্রে ভাষাগত, সংস্কৃতিগত, ঐতিহ্যগত স্বীকৃতি থাকবে যার মাধ্যমে প্রতিটি মানুষ তার নিজ অধিকার নিয়ে গর্বের সহিত বেঁচে থাকতে পারবে। তিনি আরো বলেন, এম এন লারমা স্বতন্ত্র শাসন কাঠামো, প্রথাগত ভূমি অধিকার, স্বতন্ত্র অর্থনৈতিক ব্যবস্থা, স্বকীয় ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির  প্রতিশ্রুতির প্রেক্ষিতে তিনি বাকশালে যোগদান করেছিলেন। সুতরাং মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় প্রকৃত বাংলাদেশ গঠনের জন্য এম এন লারমার আদর্শকে ধারণ করা অত্যন্ত জরুরী বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

বিশিষ্ট কলামিষ্ট ও গবেষক সৈয়দ আবুল মকসুদ মানবেন্দ্র নারায়ণ লারমার জন্মবার্ষিকীতে বিন¤্র শ্রদ্ধা জানিয়ে বলেন, তিনি ছিলেন একজন অকপট, সরল মানুষ। তিনি চেয়েছিলেন একটি আধুনিক সমাজতান্ত্রিক, ধর্মনিরপেক্ষ, গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের। যে রাষ্ট্রে শোষণহীন সমাজব্যবস্থা  প্রতিষ্ঠা করার মধ্যে দিয়ে দেশে ধনী গরীবের কোন ব্যবধান থাকবেনা। তিনি ছিলেন একজন জাতীয় নেতা। পার্বত্য চট্টগ্রামের অধিকার হারা মানুষের কথার পাশাপাশি তিনি দেশের সমগ্র খেতে খাওয়া, মেহনতি, শ্রমজীবী মানুষের কথা বলে গিয়েছেন।

ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষক ড. খায়রুল চৌধুরী বলেন, মানবেন্দ্র নারায়ণ লারমা পার্বত্য চট্টগ্রামের মানুষের আকাঙ্খাকে রাজনৈতিকভাবে মোকাবেলার জন্য পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি গঠন করেছিলেন । তিনি চেয়েছিলেন পার্বত্য চট্টগ্রাম একটি স্বতন্ত্র রাজনৈতিক ব্যবস্থায় পরিচালিত হবে, শাসনতন্ত্রে জুম্ম জনগোষ্ঠীর স্বীকৃতি থাকবে। কিন্তু ১৯৭২ সালের সংবিধান জুম্ম জনগোষ্ঠীর স্বীকৃতি দিতে পারেনি। যার কারণে তিনি স্বশস্ত্র বাহিনী গঠন করার মধ্যে দিয়ে ইস্পাত কঠিন আন্দোলনের মাধ্যমে অধিকার আদায় করতে চেয়েছিলেন।

এএলআরডির নির্বাহী পরিচালক এ্যাডভোকেট শামসুল হুদা বলেন, এম এন লারমা রাজনৈতিক আদর্শে অত্যন্ত সৎ ছিলেন। যার কারণে তিনি তার অঞ্চলের নিপীড়িত মানুষের কথা, দেশের গরীব কৃষকের কথা সংসদে অকপটে বলতে পেরেছিলেন। তিনি আরো বলেন, এম এন লারমার রাজনৈতিক প্রাজ্ঞ, মূল্যবোধ থেকে শিক্ষা নিয়ে প্রতিটি তরুণকে মানবিক রাষ্ট্র গঠনের কাজে মনোনিবেশ করতে হবে।

কবি ও সাংবাদিক সোহরাব হাসান বলেন, এম এন লারমা কেবল পার্বত্য চট্টগ্রামের নেতা নয়, তিনি জাতীয় নেতা। তার জীবনাদর্শ, তার চেতনাকে স্মরণ করা সকলের দায়িত্ব। তিনি বলেন, এম এন লারমা একটি মানবিক সমাজ চেয়েছিলেন যে সমাজে মানুষের মাঝে কোন বিভেদ থাকবেনা, বৈষম্য থাকবেনা। প্রতিটি মানুষ, প্রতিটি জনগোষ্ঠী তার স্বকীয় ঐতিহ্য, রীতিনীতি, ধর্ম দ্বিধাহীন ভাবে পালন করতে পারবে।

সভাপতির বক্তব্যে সঞ্জীব দ্রং বলেন, সামন্তকালীন সময়েও মানবেন্দ্র নারায়ণ লারমা মানবিক সমাজের কথা বলেছিলেন, শিক্ষা বিস্তারের কাজে মনোনিবেশ করেছিলেন। এম এন লারমার দেশের প্রতি, দেশের মানুষের প্রতি অকৃত্রিম ভালোবাসা ছিল। এম এন লারমার চেতনা, তার আদর্শ তরুণ প্রজন্মের মধ্যে সঞ্চারিত হওয়ার মধ্যে দিয়ে এম এন লারমার স্বপ্ন বাস্তবায়ন হবে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

--হিলবিডি২৪/সিআর.

এই বিভাগের সর্বশেষ
আর্কাইভ