তপোবন অরণ্য কুটিরে প্রবারণা পূর্ণিমা পালিত

Published: 30 Oct 2020   Friday   

শুক্রবার রাঙামাটির সদর উপজেলা ৬ বালুখালী ইউনিয়নের কাইন্দ্যা খারিক্ষ্যং মরিচ্যাবিল এলাকার রাজবন শাখা বিহার ‘তপোবন অরণ্য কুটিরে উৎসবমূখর পরিবেশে  শুভ প্রবারণা পূর্ণিমা পালিত হয়েছে।

 

অনুষ্ঠান শুরুতেই ভিক্ষু সংঘ মঞ্চে আগমণে ফুলের তোরা দিয়ে বরণ করে নেওয়া হয়। পঞ্চশীল গ্রহণের মধ্যে দিয়ে বুদ্ধমুর্তি দান, সংঘদান,অষ্টপরিস্কার দান, হাজার প্রদীপ দান,কল্পতরু দান, চীবর দান, ফানুসবাতি দান ও পিন্ডুদানসহ নানাবিধ দান উৎসর্গ করা হয়। বিশ্ব শান্তি তথা মানব জাতির মঙ্গল কামনায় পাঁচ মিনিট ভাবনা করেন পুর্ণ্যার্থীরা। অতীতের সমস্ত ভুল, অপরাধ,গলদ ক্ষমা প্রার্থনা পূর্বক নারী-পুরুষ বিভক্ত হয়ে অধিস্তান করা হয় প্রবারণা পূর্ণিমা। 

 

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন, ১১৬ নং রাঙ্গামাটির  ৬ নং বালুখালী ইউনিয়নের কার্বারী রনজিৎ তঞ্চঙ্গ্যা, রাঙ্গামাটি মা ও শিশু কেন্দ্রের চিকিৎসক ডাক্তার লেলিন তালুকদার। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন পূর্বাশা চাকমা ও দীরেন চাকমা। পুর্ণ্যার্থীদের ভক্তি ও পূজায় মুখর হয়ে উঠে কুটিরের প্রাঙ্গণ।

একে-অপরের প্রতি হিংসায় লিপ্ত না হয়ে সৎ চিন্তা ও সৎ কুশলকর্ম সম্পাদন পূর্বক নিজেকে আত্মসংযম রেখে ভগবান বুদ্ধের নিয়ম-নীতি পালনের আহ্বান জানিয়েছেন তপোবন অরণ্য কুটিরের অধ্যক্ষ ভদন্ত জিনপ্রিয় মহাস্থবির। অনুষ্ঠানে আরো ধর্মদেশনা প্রদান করেন,  বোধিপুর বনবিহারের বিহার অধ্যক্ষ ভদন্ত  শ্রীমৎ জিনবোধি মহাস্থবিরসহ অন্যান্য ভিক্ষু।

 

উল্লেখ্য, প্রবারণা অনুষ্ঠান বৌদ্ধদের অন্যতম একটি ধর্মীয় ও সামাজিক উৎসব। প্রবারণা শব্দের পালি আভিধানিক অর্থ হচ্ছে অনুরোধ,নিষেধ,ত্যাগ বা সমাপ্তি। যা বৌদ্ধ ভিক্ষুদের বর্ষাবাসের পরিসমাপ্তি, বর্ষাবাস ত্যাগ,প্রায়শ্চিত্ত বুঝায়। বৌদ্ধ ভিক্ষুদের তিনমাস বর্ষাবাস শেষে তাদের অজান্তে দোষ ত্রুটি হয়ে থাকলে ক্ষমা প্রার্থনার জন্য অপর ভিক্ষুদের নিকট প্রকাশ করে। এছাড়াও প্রবারণাকে আত্ম অন্বেষণ ও আত্ম সমর্পনের তিথি বলা যায়। আবার এই দিনে পূর্ণাঙ্গ অভিধর্ম দেশনা সমাপ্ত হওয়ায় এই দিবসকে অভিধর্ম দিবসও বলা হয়।

--হলিবডি২ি৪/সম্পাদনা/সআির.

উপদেষ্টা সম্পাদক : সুনীল কান্তি দে
সম্পাদক : দিশারি চাকমা
মোহাম্মদীয়া মার্কেট
কাটা পাহাড় লেন, বনরুপা
রাঙামাটি পার্বত্য জেলা।
ইমেইল : info@hillbd24.com
সকল স্বত্ব hillbd24.com কর্তৃক সংরক্ষিত