সবাইকে যার যার ধর্মের নীতি আর্দশ মেনে শান্তি পথে চলা উচিৎ-দীপংকর তালুকদার এমপি

Published: 31 Dec 2020   Thursday   

খাদ্য মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি দীপংকর তালুকদার এমপি বলেছেন, আমাদের জননেত্রী শেখ হাসিনা একজন ধর্মপরায়ন মানুষ এবং তিনি সব ধর্মের ব্যাপারেই অত্যন্ত আন্তরিক। তিনি চান প্রত্যেক ধর্মের লোকেরা যাতে নির্বিঘেœ তাদের ধর্ম পালন করতে পারে। তাই তিনি জনগণের নিরাপত্তাসহ সকল ধরনের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করেছেন। 

 

তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পার্বত্য এলাকার মানুষের কথা চিন্তা করে বলেই দেশের অন্যান্য এলাকার ন্যায় পার্বত্য এলাকার উন্নয়নের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। আর বর্তমান সরকার পার্বত্য এলাকার সার্বিক উন্নয়নে বদ্ধ পরিকর। তাই পার্বত্য এলাকায় শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় থাকা দরকার।


রাঙামাটির বাঘাইছড়ি উপজেলার রূপকারী ইউনিয়নের মগবান শাক্যমুনি বৌদ্ধ বিহারে পার্বত্য ভিক্ষু সংঘের ৪র্থ সংঘ রাজ কাচালং শিশু সদনের প্রতিষ্ঠাতা ও পরিচালক অধ্যক্ষ ভদন্ত তিলোকান্দ মহাথের এর ৮৩তম জন্ম জয়ন্তি উপলক্ষে আয়োজিত ধর্মীয় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে দীপংকর তালুকদার এমপি এসব কথা বলেন।


দীপংকর তালুকদার এমপি বলেন, প্রত্যেক ধর্মে শান্তির কথা উল্লেখ রয়েছে। তাই আমাদের উচিৎ সবাইকে যার যার ধর্মের নীতি আর্দশ মেনে শান্তি পথে চলার। তিনি সকলকে মারা-মারি, খুনা-খুনি ও রক্তপাত থেকে বের হয়ে ধর্মের পথে মৈত্রী ভাবনা করেই পথ চলার আসার আহব্বান জানান। তিনি কাচালং শিশু সদনের উন্নয়নের লক্ষে সকল ধরণের সহায়তা প্রদান করা হবে বলে আশ্বাস প্রদান করেন।


পার্বত্য ভিক্ষুসংঘ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ভদন্ত শ্রদ্ধালংকার মহাস্থবিরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অংসুই প্রু চৌধুরী, বাঘাইছড়ি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সুদর্শন চাকমা, সাবেক জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও বাঘাইছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি বৃষকেতু চাকমা, জেলা পরিষদের সদস্য প্রিয়নন্দ চাকমা, বাঘাইছড়ি উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল কাইয়ুম, বাঘাইছড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ আশরাফ উদ্দিনসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতা কর্মীসহ, এলাকার চেয়ারম্যান, হেডম্যান, কার্বারী, ও পাঁচ শতাধিক ভক্তকূল উপস্থিত ছিলেন।


এছাড়াও শুভ জন্মদিন উপলক্ষে বিশাল আকার কেক কাটা হয় পাশাপাশি আমন্ত্রিত অতিথিদের পক্ষ থেকে নানা উপহার সামগ্রী তুলে দেন। জয়ন্তি উৎসব ও সাস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এছাড়া ২৯ লক্ষ ৭০ হাজার টাকা দিয়ে একটি নতুন টয়োটা নোহা গাড়ী উপহার দিয়েছেন তিলোকানন্দ মহাস্থবির ভান্তের ভক্তকুল ও দায়ক-দায়িকারা।


উল্লেখ্য, তিলোকানন্দ মহাস্থবির ২০০৭ সালে ইউনিলিভার কর্তৃক সারা দেশ থেকে ১০ জন সাদা মনের মানুষের তালিকায় স্থান পান।
--হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

 

উপদেষ্টা সম্পাদক : সুনীল কান্তি দে
সম্পাদক : সত্রং চাকমা

মোহাম্মদীয়া মার্কেট, কাটা পাহাড় লেন, বনরুপা, রাঙামাটি পার্বত্য জেলা।
ইমেইল : [email protected]
সকল স্বত্ব hillbd24.com কর্তৃক সংরক্ষিত