বড়থলির তিন খুনের ঘটনায় মামলায়, কেএনএফ`র ৩০ জন আসামি

Published: 04 Jul 2022   Monday   

রাঙামাটির বিলাইছড়ি উপজেলার দুর্গম বড়থলি ইউনিয়নের সাইজাম পাড়ায় তিন খুনের ঘটনার ১৩ দিন পর অবশেষে মামলা হয়েছে। সোমবার রাতে মামলার রুজুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বিলাইছড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) মোহাম্মদ আলমগীর।

ওসি মোহাম্মদ আলমগীর জানান, `গত ২১ জুন বড়থলি ইউনিয়নের সাইজাম পাড়ায় তিনজন ত্রিপুরাকে গুলি করে হত্যার ঘটনায় নিহত কিশোর ধনেরাং ত্রিপুরা বাবা সিতারাং ত্রিপুরা বাদী হয়ে বিলাইছড়ি থানায় একটা মামলা দায়ের করেন। মামলায় কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্ট (কেএনএফ) এর ২৫ থেকে ৩০ জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়েছে।`

তিনি আরও জানান, ঘটনার সময় নাম-পরিচয় না জানলেও পোষাক পরিহিত ও ভাষাগত পরিচয়ে কুকি-চিন বলে জানতে পেরেছেন বলে মামলায় উল্লেখ করেছেন বাদী।

এদিকে, এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনার পর স্থানীয়ভাবে `বম পার্টি` হিসেবে পরিচিত কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্টের (কেএনএফ) ফেসবুকে পেজে হত্যার দায় স্বীকার করেছে সংগঠনটি। একইসঙ্গে তারা নিহতদের সন্তু লারমার নেতৃত্বাধীন পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির (পিসিজেএসএস) সদস্য হিসেবে দাবি করলে নিহতরা সাধারণ গ্রামবাসী বলে জানায় জনসংহতি সমিতি।

উল্লেখ্য, গত ২১ জুন সন্ধ্যায় রাঙামটির বিলাইছড়ি উপজেলার সীমান্তবর্তী দুর্গম বড়থলি ইউনিয়নে গুলি করে তিনজনকে হত্যা করা হয়। হত্যাকাণ্ডের ঘটনার পর থেকেই থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে বড়থলিসহ রাঙামাটি-বান্দরবান জেলার এই সীমান্তবর্তী এলাকাগুলোতে। বড়থলি বিলাইছড়ি উপজেলার সবচেয়ে দুর্গম ইউনিয়ন।এই ইউনিয়নে সড়ক যোগাযোগ ও যাতায়াত ব্যবস্থা নেই। মোবাইল নেটওয়ার্কবিচ্ছিন্ন বড়থলিতে চাইলেই যোগাযোগ করা সম্ভব হয়ে উঠেনা। রাঙামাটি-বান্দরবানের সীমান্তবর্তী এই ইউনিয়নটির মানুষের যাতায়াত মূলত বান্দরবানের রুমা উপজেলা হয়ে।

--হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

 

 

 

উপদেষ্টা সম্পাদক : সুনীল কান্তি দে
সম্পাদক : সত্রং চাকমা

মোহাম্মদীয়া মার্কেট, কাটা পাহাড় লেন, বনরুপা, রাঙামাটি পার্বত্য জেলা।
ইমেইল : [email protected]
সকল স্বত্ব hillbd24.com কর্তৃক সংরক্ষিত