• Hillbd newsletter page
  • Hillbd rss page
  • Hillbd twitter page
  • Hillbd facebook page
সর্বশেষ
রাঙামাটির দুটি গ্রামে কর্মহীন প্রান্তিক জনগোষ্ঠীদের মাঝে এখনো খাদ্য সহায়তা নেই                    পাহাড়ে বিজু উৎসব বিরত রাখতে অনুরোধ রাঙামাটি হেডম্যান এসোসিয়েশনের                    জুরাছড়িতে কর্মহীন লোকজনদের মাঝে জেলা পরিষদের ত্রাণ সহায়তা প্রদান                    নানিয়ারচরে ১২শত কর্মহীন পরিবারকে খাদ্য শস্য দিল রাঙামাটি জেলা পরিষদ                    রাঙামাটিতে মোটর বাইকবাহী ইমার্জেন্সি রেসপন্স টীম দিয়ে ঘরে ঘরে ত্রাণ পৌছে দিচ্ছে                    বাঘাইছড়িতে তিন শতাধিক অসহায়দের মাঝে বিএনপির ত্রাণসামগ্রী বিতরণ                    বরকলে ১শ ৫০জন কর্মহীন পরিবারের মাঝে খাদ্যশস্য বিতরণ                    করোনা মোকাবিলার রাঙামাটি প্রশাসনের কাছে আর্থিক সহায়তা জুম ফাউন্ডেশনের                    রাঙামাটির বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে জেলা পরিষদের করোনা সুরক্ষা উপকরণ বিতরণ                    করোনা মুক্ত রাখতে কাজ করছে খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসন                    রাঙামাটিতে অসহায় ও গরীব ১২০ পবিরারের ঘরে ঘরে খাদ্য শষ্য পৌছে দিয়েছে ছাত্রলীগ                    করোনা ভাইরাস সংক্রমন ঠেকাতে মহালছড়ির বেশিরভাগ গ্রাম লকডাউন                    বাঘাইছড়ি কাচালং নদীতে ৩৬ঘণ্টা পর নারীর মরদেহ উদ্ধার                    বিনা চিকিৎসায় ঢাবির এক পাহাড়ী শিক্ষার্থীর মৃত্যুর অভিযোগ                    মানুষকে ঘরে রাখার জন্য খাগড়াছড়ি প্রশাসনের প্রচেষ্টার কমতি নেই                    বরকলে ১৫শ অসহায় পরিবারের মাঝে জেলা পরিষদের খাদ্যশস্য বিতরণ                    করোনার প্রভাবে কর্মহীন ৫শ’ ব্যবসায়িকে ত্রাণ দিল রিজার্ভ বাজার ব্যবসায়ি কল্যাণ সমিতি                    মহালছড়িতে কালবৈশাখী ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে ইউএনও`র ত্রাণ বিতরণ                    খাগড়াছড়িতে পরিবহন শ্রমিকদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ                    বন্দুকভাঙ্গায় ১শ গরীব ও কর্মহীনদের ত্রাণ সামগ্রি বিতরণ করলেন ব্যবসায়ী তপন চাকমা                    রাঙামাটিতে ১০টাকা কেজি ওএমএস চাউল বিতরণ শুরু                    
 

একটি সেতুই বদলে দিতে পারে দুর্গম জুরাছড়ি উপজেলাবাসীর উন্নয়ন

স্টাফ রিপোর্টার : হিলবিডি টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published: 28 Mar 2013   Thursday

একটি সেতুই বদলে দিতে পারে রাঙামাটির দুর্গম জুরাছড়ি উপজেলাবাসীর ভাগ্য উন্নয়ন। সেটি হল সামিরা-ঘিলাতলির এলাকার ছলক নদীর উপর সংযোগ সেতু। উপজেলাবাসীর  দীর্ঘ দিনের স্বপ্নের সেতুটি নির্মিত হলে একদিকে চার ইউনিয়নের প্রায় ৩০ হাজার মানুষের যাতায়াতের পথ সুগম হবে। অপরদিকে কৃষকদের উৎপাদিত পণ্য সহজেই উপজেলা সদরে বিক্রি করা সম্ভব হবে।

 

সম্প্রতি রাঙামাটির জেলার মধ্যে অন্যতম দুর্গম উপজেলা জুরাছড়িতে সরেজমিনে এলাকার নেতৃত্ব স্থানীয় এবং এলাকাবাসীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, জুরাছড়ি উপজেলার চার ইউনিয়ন জুরাছড়ি সদর, মৈদং, দুমদুম্যা ও বনযোগীছড়ার এলাকাবাসীর দীর্ঘ দিন ধরে সামিরা-ঘিলাতলির ছলক নদীর(শুভলং ছড়া) উপর একটি সেতু নির্মানের জন্য দাবি করে আসছেন। কিন্তু কোন সরকারই এলাকাবাসীর এই দাবী পুরণ করেনি। ফলে এই চার ইউনিয়নের প্রায় ৩০ হাজার মানুষের স্বপ্নের সামিরা-ঘিলাতলি সেতুটি স্বপ্ন হিসেবেই রয়েছে। এই সেতুটি নির্মিত হলে চার ইউনিয়নের সড়ক পথে সরাসরি সংযোগ স্থাপন ছাড়াও কৃষকদের উৎপাদিত পণ্য সহজেই উপজেলা সদরসহ রাঙামাটিতে বিক্রি করা যাবে। এতে স্থানীয় লোকজন অর্থনৈতিভাবে লাভ হওয়া ছাড়াও এলাকার প্রচুর পরিবর্তন ঘটবে। কিন্ত সেতুটি স্থাপিত না হওয়াতে এলাকার উন্নয়নসহ সব কিছুই থমকে রয়েছে।


সরেজমিনে আরও দেখা গেছে, জুরাছড়ি সদর উপজেলা থেকে মাত্র ৫থেকে ৬ কিলোমিটার দুরত্ব হচ্ছে এই সামিরা-ঘিলতলি সেতৃুর সংযোগ স্থানটি। জুরাছড়ি উপজেলা সদর থেকে সামিরা এলাকা পর্যন্ত গাড়ী চলাচল করতে পারলেও ছলক নদীর ওপর সেতু নির্মিত না হওয়াতে সরাসরি মৈদং ও দুমদুম্যা ইউনিয়নের যাওয়া যাচ্ছে না। এছাড়া বর্ষা মৌসুমের ছলক নদীর পানি বেড়ে গেলে এলাকার লোকজনের নৌকায় পাড়াপাড়ের জন্য ঝুকিঁপুর্ন হয়ে উঠে। বিশেষ করে সামিরা-ঘিলাতলি এলাকায় একটি মাত্র সরকারী প্রাইমারী স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীদের নৌকায় পাড়াপাড়ের অনেক সময় দুর্ঘটনা ঘটছে।


সামিরা মুখ এলাকার মুরুব্বী স্নেহ চাকমা জানান সামিরা-ঘিলাতলির সংযোগ সেতৃুটি না হওয়াতে চার ইউনিয়নের লোকজন খুব অসুবিধা রয়েছি। বিশেষ করে বর্ষাকালে ছলক নদীর পানি বেড়ে গেলে স্কুলের কমলমতি ছাত্র-ছাত্রীদের এবং দুমদুম্যা ও মৈদং ইউনিয়নের লোকজনদের পাড়াপাড়ের ভীষন অসুবিধা হয়। এই সেতুটি নির্মিত হলে উপজেলার চার ইউনিয়নের সংযোগসহ ইউনিয়নবাসী উপকৃত হবে।

জুরাছড়ি সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ক্যানন চাকমা জানান, সামিরা-ঘিলাতলি সেতুটি নির্মিত হলে উপজেলা সদরের সাথে বাকী তিন ইউনিয়ন মৈদং, দুমদুম্যা ও বনযোগী ছড়ার সাথে সড়ক পথে সরাসরি সংযোগ স্থাপিত হবে। পাশপাশি এলাকার লোকজনের অর্থনৈতিক উন্নয়নসহ এলাকার পরিবর্তন ঘটবে। তাই এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে অবিলম্বে এই সেতু নির্মানের জন্য সরকারের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি।

 

জুরাছড়ি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান প্রবর্তক চাকমা জানান, উপজেলাবাসীর প্রাণের দাবি ও স্বপ্নের দাবি হচ্ছে সামিরা-ঘিলাতলি সংযোগের ছলক নদীর ওপর একটি মাত্র সেতু নির্মাণ করা। যেটি একশ দশ থেকে একশ বিশ মিটার লম্বায় এই সেতু নির্মিত হলে চার ইউনিয়নের প্রায় ৩০ হাজার মানুষের স্বপ্ন পূরণ হবে। পাশাপাশি কৃষকদের মাথার ঘাম পায়ে ফেলে আদা-হলুদ, কচু কলাসহ ইত্যাদি উৎপাদিত পণ্য সঠিক সময়ে উপজেলা সদরে নিয়ে গিয়ে বিক্রি করে নায্য মূল্য পাবে। তাছাড়া এই সেতুর মাধ্যমে চার ইউনিয়নের মধ্যে সরাসারি সড়ক পথে সংযোগ স্থাপিত হবে। তিনি আরও বলেন, বিগত দু বছর ধরে এই সেতু নির্মানের জন্য পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের মাধ্যমে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। ইতোমধ্যে স্থানীয় সরকার প্রকৌশ অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশীলর কাছেও আবেদন করেছেন। কিন্তু এখনো কোনো উত্তর পায়নি। তাই জুরাছড়িবাসীর কাছে বর্তমান সরকারের কাছে একমাত্র চাওয়া-পাওয়া হচ্ছে অবিলম্বের এই স্বপ্নের সেতুটি নির্মাণ করা।

--হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর

 

আর্কাইভ